৯০ ভাগ বর্জ্য অপসারণ: সাঈদ খোকন

0
200

অন্য বছরের মতো এবছর কোরবানি ঈদের বর্জ্য খুব একটা ভোগায়নি নগরবাসীকে। কোরবানির দ্বিতীয় দিনে সকালেই শহরজুড়ে তৎপরতা দেখা গেছে সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের। দক্ষিণ সিটির কিছু অলি-গলিতে বর্জ্য পড়ে থাকার অভিযোগ এলেও, উত্তর সিটি করপোরেশনের বর্জ্য অনেকটাই অপসারিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাসিন্দারা। তবে, এ বছর সিটি করপোরেশন দ্রুততার সঙ্গে অপসারণ কার্যক্রম চালানোয়, সন্তোষ জানিয়েছেন নগরবাসী।

ত্যাগের উদ্দেশে পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে পবিত্রতা আসে ধর্মীয় আয়োজনের। পূর্ণতা পায় ঈদুল আজহা উদযাপন। কিন্তু কোরবানির বর্জ্য যত্রতত্র ফেলে নোংরা করা পরিবেশ অস্বস্তিতে ফেলে নগরবাসীকে, চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড় করায় সিটি করপোরেশনকে।

গেলো বেশ কয়েক বছর কোরবানির পর সপ্তাহজুড়ে নগরের মূল সড়ক থেকে অলিগলি পর্যন্ত কোরবানির পশু বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেলেও এ বছরের চিত্রটা একেবারেই উল্টো। এক দিনের মধ্যে নগরের উত্তর থেকে দক্ষিণের অধিকাংশ বর্জ্যই অপসারিত হওয়ায় স্বস্তির বার্তা আসছে নগরবাসীদের তরফ থেকে।

নগরবাসী জানায়, আগে নাকে হাত দেওয়া ছাড়া রাস্তায় চলাচল করা যেত না। এখন আগের থেকে অনেক উন্নত হয়েছে। সিটি করপোরেশন আন্তরিকতার ঘাটতি আছে, সেটা বলব না। তবে, সক্ষমতার ঘাটতি রয়েছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ময়লাগুলো অপসারণ করছে, আশা করি খুবই ভালো কাজ হয়েছে।

তবে, গলিপথের বর্জ্যগুলো এখনো সরিয়ে না নেয়ায় আক্ষেপ আছে এলাকাবাসীর। নির্ধারিত স্থানে বর্জ্য না রাখায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে বিলম্ব ঘটছে বলেও জানাচ্ছেন কেউ কেউ। যদিও সিটি করপোরেশনের মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের দাবি- নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পরিষ্কার হবে সব এলাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here