‌‌‌‌‌‌’পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগকারীরা বিএনপির নেতাকর্মী’

0
139

নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পুলিশের ওপর হামলা, গাড়িতে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগকারীদের ভিডিও ফুটেজ দেখে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) সংবাদমাধ্যমকে তিনি একথা জানান। পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগকারীরা সবাই বিএনপির নেতাকর্মী বলেও দাবি করেন ডিএমপি কমিশনার।

কমিশনার বলেন, নির্বাচনের আগে পুলিশকে উস্কানি দিতে আর অসৎ উদ্দেশে আমাদের গাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। কারা আগুন দিয়েছেন, তাদের দেখা গেছে। এছাড়া মিডিয়ার ফুটেছে স্পষ্টই দেখে যায় তারা কীভাবে পুলিশের সদস্যদের লাঠিপেটা ও ইটপাটকেল মেরেছেন।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, বিএনপি এ হামলা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ঘটিয়েছে। নির্বাচনের আগে তারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতেই এ অতর্কিত হামলা চালিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, তখন আমাদের পুলিশ সদস্যরা জীবন বাঁচাতে টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে।

নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ে সামনে বুধবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলটির মনোনয়ন ফরম বিক্রিকে কেন্দ্র করে সড়কে নেতাকর্মীরা ভিড় করছিলেন। এতে সড়কে যান চলাচল ব্যাহত হচ্ছিল। পুলিশ সড়ক খালি করার চেষ্টা করলে দু’পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার সূত্রপাত।

নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বেধে যায়। বিএনপি কার্যালয়ের সামনে অবস্থানরত পুলিশের দুটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এসময় তারা পুলিশের অন্য আরেকটি গাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। পুলিশের গাড়িসহ অন্যান্য গাড়ি ভাঙচুরের সময় গাড়ির উপরে উঠে উল্লাস করতে দেখা যায় জনতাকে।

এদিকে, সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের গাড়িতে দিয়াশলাই দিয়ে আগুন লাগানো যুবক ও অপর এক যুবককে পুলিশের গাড়ির ওপর লাফালাফি করতে দেখা যায়। এই দুজনকেই শনাক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মতিঝিল বিভাগের সহকারী কমিশনার মিশু বিশ্বাস।

তিনি জানান, পুলিশের গাড়িতে যে যুবক আগুন দিয়েছেন, তার নাম শাহজালাল খন্দকার। তিনি পল্টন থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। আর পুলিশের গাড়ির ওপর লাফালাফি করা যুবকও ছাত্রদলের বলে দাবি করেন তিনি।

গাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, রাস্তা অবরোধ, পুলিশকে মারধর ও সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে পল্টন থানায় তিনটি মামলা করা হয়। এ ঘটনায় অন্তত ৪০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সময়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here