আরও বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম

0
62

বেড়েই চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম। পণ্যের এই ঊর্ধ্বগতিতে নাভিশ্বাস সাধারণ মানুষের। শুক্রবার সকালে মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটসহ রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

বাজারে সবজি থেকে শুরু করে মাছ, মাংস- সব ধরনের পণ্যের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে। সম্প্রতি চালের দাম বৃদ্ধি ভাঁজ ফেলেছে নিম্নমধ্যবিত্তদের কপালে।

বাজারে ফুলকপি, সিম, বেগুনের দাম প্রায় একই থাকলেও গতো সপ্তাহের তুলনায় এবার বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। সাত দিন আগে ৪৫ টাকা থাকলেও এবার তার দাম বেড়ে হয়েছে ৫০-৬০ টাকা। মরিচের দাম কেজিপ্রতি ২০ টাকা বেড়ে হয়েছে ১০০ টাকা। যদিও আলুর দাম কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহে ২০ টাকা কেজি থাকলেও এবার তা নেমে এসেছে ১৫ টাকায়।

মাছের বাজারেও দেখা গেল একই চিত্র। রুই মাছের দাম কেজিপ্রতি ৫০ বেড়ে হয়েছে ৪০০ টাকা। বড় চিংড়ি ৮০০ টাকা কেজি, ছোট চিংড়ি ৬০০ টাকা কেজি। এছাড়া ইলিশ মাছের দাম বেড়ে দাড়িয়েছে প্রতি কেজি ১০০০ টাকা। গত সাত দিন আগেই দাম কেজিপ্রতি ছিল ৮০০ টাকা।

ব্যবসায়ীদের দাম বাড়ার এমন কারণ জিজ্ঞেস করতেই বলেন, ‘সবকিছুর দামই তো বাড়ছে, তাই বাধ্য হয়ে আমাদেরও দাম বাড়াতে হয়েছে।’

গরু ও খাসির মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গরুর মাংসের কেজি ৬০০ টাকা এবং খাসির দাম ৮০০ টাকা কেজি। কিন্তু বেড়েছে মুরগির দাম। গত সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগি কেজিপ্রতি ১৬৫ টাকা থাকলেও এবার তা বেড়েছে ১৭০ টাকায়। লাল মুরগির (পাকিস্তানি) দাম ছিল ২৮০ টাকা, এ সপ্তাহে তার দাম দাড়িয়েছে ৩০০ টাকায়।

এদিকে প্রধান নিত্যপণ্য চালের দামও বেড়েছে। ৬৫ টাকার মিনিকেট চালের দাম হয়েছে ৬৮ টাকা। এছাড়া নাজিরশাইল চালের দাম কেজিপ্রতি ৭০ টাকায়। পোলাওয়ের চালের দাম ৯০ টাকা থেকে এক সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়ে হয়েছে ১০০ টাকা।

দ্রব্যমূল্যের এই লাগামহীন বৃদ্ধিতে বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। মোহাম্মদপুরবাসী সেলিম হোসেন বলেন, ‘সবকিছুর দাম যেভাবে বাড়ছে, সামনে হয়তো আমাদের মতো মানুষদের বেঁচে থাকা কষ্টকর হয়ে যাবে।’ সূত্র : ঢাকাটাইমস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here