নারী উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে সরকারের বিনামূল্য প্রশিক্ষণ কোর্স

0
84

নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ এখন অনেক এগিয়ে। নারীরা এখন ব্যবসার মাধ্যমে নিজেদের স্বাবলম্বী হিসেবে গড়ে তুলছে। আর যেসকল নারীরা এখনো পিছে পড়ে আছে তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার মাধ্যমে উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে তিন মাস মেয়াদি বিনা মূল্যে প্রশিক্ষণ দেবে সরকার।

সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি থেকে এই প্রশিক্ষণ কোর্স করানো হবে। সম্প্রতি একটি ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, সিলেট, চট্টগ্রাম, দিনাজপুর, বগুড়া, রংপুর ও রাজশাহী জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। যেসব কোর্সগুলো করা হবে সেগুলো হলো- বিউটিফিকেশন ও উদ্যোক্তা, ফ্যাশন ডিজাইন, পণ্য ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন, খাদ্য ও পানীয় প্রস্তুতকরণ এবং উদ্যোক্তা উন্নয়ন, মোবাইল ফোন সেবা ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন।

আগ্রহী নারী প্রার্থীদের বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত প্রশিক্ষণকেন্দ্র অথবা সেইপ-বিডব্লিউসিসিআই কার্যালয় (বাড়ি নম্বর ২ তৃতীয় তলা), রোড নম্বর ২৩/ সি, গুলশান-১, ঢাকা ১২১২ থেকে নির্ধারিত আবেদন ফরম সংগ্রহ করে ১৯ জুনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রে আবেদন জমা দিতে হবে।

এই কোর্সের সুবিধাসমূহ-

– প্রশিক্ষণ কোর্সগুলো সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে।

– প্রশিক্ষণার্থীদের কমপক্ষে ৮০ শতাংশ উপস্থিত থাকতে হবে।

– প্রশিক্ষণার্থীদের সফলভাবে প্রশিক্ষণ শেষে এককালীন দৈনিক যাতায়াত বাবদ ১০০ টাকা ও টিফিন বাবদ ৫০ টাকা প্রদান করা হবে।

– প্রশিক্ষণ শেষে কৃতকার্য প্রশিক্ষণার্থীদের সনদ প্রদান করা হবে।

– কৃতকার্য প্রশিক্ষণার্থীদের ব্যবসা উন্নয়ন বা কর্মসংস্থানের সহায়তা করা হবে।

– কৃতকার্য প্রশিক্ষণার্থীদের ব্যবসা উন্নয়ন ও প্রসারে ব্যাংক‍ঋণ প্রাপ্তিতে সহযোগিতা করা হবে।

এই কোর্সের শর্তসমূহ-

– সর্বনিম্ন ১৮ বছর এবং সর্বোচ্চ ৪৫ বছরের নারী।

– কমপক্ষে এসএসসি পাস।

– আবেদনপত্রে যোগাযোগের জন্য প্রথম যে নম্বর দেওয়া হবে, সেটি অবশ্যই নিজের ন্যাশনাল আইডি দিয়ে নিজের নামে রেজিস্ট্রিকৃত সিম থেকে হবে।

– প্রশিক্ষণ শেষে যারা সংশ্লিষ্ট ব্যবসা করতে আগ্রহী এবং প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, শুধু তাদের কাছ থেকেই আবেদন আহ্বান করা যাচ্ছে।

– একজন প্রার্থী একটি কোর্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

– নিষ্ঠার সঙ্গে প্রশিক্ষণ নিতে এবং সম্পন্ন করতে প্রশিক্ষণে ১০০ শতাংশ উপস্থিত থাকার আগ্রহ থাকতে হবে।

– সংখ্যালঘু/ ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী/ প্রতিবন্ধী/ বিধবা নারীদের অগ্রাধিকারের সঙ্গে বিবেচনা করা হবে।

– যেহেতু প্রশিক্ষণ কোর্সগুলো অনাবাসিক, সেহেতু যারা নিয়মিত এবং সময়মতো, অর্থাৎ পুরো মেয়াদে প্রশিক্ষণ কোর্সে উপস্থিত থাকতে পারবেন, শুধু তারাই আবেদন করতে পারবেন।

– প্রশিক্ষণের জন্য প্রার্থী বাছাই, কোর্সে অংশগ্রহণের সময়সূচি নির্ধারণ ও অন্য সব বিষয়ের অধিকার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে। সূত্র : সময়টিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here