বাংলাদেশে মানুষের কাছে গণতন্ত্র !

0
206

১৫ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস। এই দিবস উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে জাতিসংঘের মহাসচিব বলেন,বিগত শতাব্দীগুলোর যেকোনো সময়ের তুলনায় গণতন্ত্র এখন অপেক্ষাকৃত বেশি চাপের মধ্যে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। ‘এ কারণে এই আন্তর্জাতিক দিবসে আমাদের উচিত গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে সম্ভাব্য উপায় এবং যে পদ্ধতিগত চ্যালেঞ্জগুলো গণতন্ত্রকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করছে সেগুলোর সমাধান অনুসন্ধান করা।’

বাংলাদশেে বিভিন্ন পেশার মানুষের কাছে প্রশ্ন গণতন্ত্র বলতে তারা কি বোঝেন ! বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে সাধারণ মানুষের কথায় উঠে এসেছে তাদের চিন্তা-ভাবনা। শিক্ষর্থী বলছেন,গণতন্ত্র মানে হলো জনগনের যৌক্তিক দাবী-দাওয়া সরকারের মেনে নেওয়া। সরকার আমাদের সবার মতামত নিবে, আমরা কী চাচ্ছি সেটা শুনবে। একটি রাষ্ট্রের জনগণের দ্বারা নির্বাচিত সরকার থাকবে। সে সরকার জনগনের ইচ্ছা পূরণ কাজ করবে। দেশে একটা নির্বাচন হোক সেখানে আমরা পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারবো।

বয়স, পেশা ও সামাজিক অবস্থানের ভিত্তিতে মানুষের ভাবনাও ছিলো ভিন্ন। তারা বলছেন, আমরা গণতন্ত্র মানে বুঝি না। আমরা কাজ করি, খাই। সরকারি সুযোস সুবিধা পাই না। দেশ স্বাধীনতার পরে আমরা গণতন্ত্রিক দেশে বসবাস করে আসছি। সে ক্ষেত্রে আমরা এটাই বুঝি, আমার চলার পথে, কাজে, আমার স্বাধীনতায় কেউ বাধাঁ দেবে না। আমরা স্বাধীনভাবে ভোট দিতে পারি, ভোট কেন্দ্রে যেতে পারি।

গণতান্ত্রিক অধিকার কতটুকু চর্চা করতে পারছে সাধারণ মানুষ। সে বিষয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তারা।
সাধারণ মানুষ বলেন, আমরা কেন্দ্রে গিয়ে ঠিকভাবে ভোট দিতে পারছি না, এটা কি গণতন্ত্র? সরকারের উঁচু স্তরে আছে তারা ইচ্ছা মতো সিদ্ধান্ত দিচ্ছে আর আমরা সেটা না পেরে মেনে নিচ্ছি। তবে অনেকেই বলছেন, আমি আমার ইচ্ছা স্বাধীনমতো সব করতে পারছি, সুতরাং গণতন্ত্র নিয়ে আমি সন্তুষ্ট।

বাংলাদেশেও সংসদীয় গণতন্ত্র চালু রয়েছে। এখানে সর্বময় ক্ষমতা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত সংসদের ওপরে ন্যস্ত থাকে। এই ব্যবস্থায় সরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন প্রধানমন্ত্রী। এ ধরনের শাসনব্যবস্থায় প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা নগণ্য। যুক্তরাজ্য, ভারতসহ বিশ্বের অনেক দেশেই বর্তমানে সংসদীয় গণতন্ত্র চালু আছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here