সকালের নাশতায় যেসব খাবার এড়িয়ে চলবেন

0
46

সকালের নাশতা দিনের শুরুতে শরীরকে সারাদিনের জন্য তৈরি করে। শরীরের ভারসাম্য রক্ষায় এবং শরীর সুস্থ রাখতে সকালের নাশতা খেতেই হবে। যেহেতু দিনের প্রথম খাবার এবং শরীর তার প্রয়োজনীয় অধিকাংশ শক্তিই পায় সকালের নাশতা থেকে তাই নাশতা হওয়া উচিত হালকা। যা সহজপাচ্য এবং সহজে হজম হয়। সেই সঙ্গে শরীর যাতে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পায়, সেদিকেও কিন্তু নজর রাখতে হবে।

আর তাই স্যাচুরেটেড ফ্যাট, চিনি এসব কিন্তু অবশ্যই বাদ রাখবেন সকালের নাশতা থেকে। এতে ক্ষতি হয় শরীরেরই। সেই সঙ্গে শরীরে প্রদাহ জনিত নানা সমস্যাও কিন্তু দেখা দেয়। কিন্তু জানেন কি, আমাদের সকালের নাশতার পছন্দের কিছু খাবারের মধ্যেই থাকে অতিরিক্ত চিনি। আর সেখান থেকে অজান্তেই শরীরের অনেক ক্ষতি হয়। ওজন বাড়ে, কোলেস্টেরলের সমস্যা বাড়ে, ডায়াবেটিসের সমস্যা আসে। আর তাই প্রথম থেকেই কিন্তু এ ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে।

আমাদের জীবনযাত্রার পরিবর্তনের জন্যও কিন্তু প্রভাব পড়ে শরীরে। সময়ের অভাবে অনেকেই ফাস্ট ফুড বেশি পছন্দ করেন। আর তার প্রভাব কিন্তু পড়ে শরীরেও। দেখে রাখুন সকালের নাশতায় কোন কোন খাবার আমাদের শরীরে বাড়িয়ে দেয় প্রদাহের সম্ভাবনা।

সুস্বাদু কফি

দিনের শুরুতে কপি অনেকেই খান। এমনকী পুষ্টিবিদরাও কফি খাওয়ার কথা বলেন। তবে সেসবই কিন্তু চিনি ছাড়া কালো কফি। দুধ, চিনি দিয়ে চা-কফি থেকে দূরে থাকার কথা বলা হয় সব সময়। কিন্তু অনেকেই দিন শুরু করেন, চিনি, ক্রিম দেওয়া কফির সঙ্গে। যা আমাদের শরীরের জন্য একেবারেই ভাল নয়। এতে যেমন ওজন বাড়ে তেমনই শরীরে একাধিক সমস্যাও আসে। বিশেষত ডায়াবেটিস আসতে বাধ্য যদি নিয়মিত খান এই কফি।

এক গ্লাস জুস

এক গ্লাস জুস খেয়ে অনেকে সকালের নাশতা শেষ করেন। এটা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সকালে খালি পেটে জুস খাবেন না। কারণ ফলের রস খেলে শরীরে শর্করার মাত্রা অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যেতে পারে। তাছাড়া অ্যাসিডিটির সমস্যাও ও ওজন বেড়ে যেতে পারে।

সসেজ, বেকন

ইংলিশ ব্রেকফাস্ট যাদের পছন্দ তারা কিন্তু তালিকায় সবার আগে রাখেন সসেজ, বেকন। আর এই বেকন শরীরের জন্য একেবারেই ভাল নয়। স্যান্ডউইচ বা টোস্ট দিয়ে বেকন খেলে কিন্তু শরীরের সমস্যাই আসে বেশি। আর বেকনের মধ্যে স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে অনেকটা বেশি পরিমাণে। যে কারণে এই রকম প্রসেসড মিট একেবারেই এড়িয়ে চলা ভাল।

ফ্লেভারড ওটস

ওটসের মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি। আজকাল অনেকেই সকালের ব্রেকফাস্টে ওটস খান। শরীরে রক্তশর্করা, ট্রাইগ্লিসারাইড, কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতেও কিন্তু ভাল কাজ করে ওটস। কিন্তু ফ্লেভারড ওটস একেবারেই নয়। আজকাল বাজারে প্রচুর ফ্লেভারড ওটস পাওয়া যায়। কোনওটায় যেমন ডাল মেশানো থাকে তো কোনওটায় আবার মধু। আর তাই এইসব ফ্লেভারড ওটস কিন্তু মোটেই খাবেন না। ওটস চকদই বা ম্যাপেল সিরাপ দিয়ে খান, অন্য কোনও কিছু দিয়েও খেতে পারেন।

মিষ্টিযুক্ত খাবার

সকালের নাশতায় কৃত্রিম চিনি বা মিষ্টিযুক্ত খাবার খাওয়া যাবে না।এছাড়া প্রক্রিয়াজাত মাংস সকালে না খাওয়াই ভাল। এসব খাবার শরীরে অতিরিক্ত মেদ সৃষ্টি করে। সেই সঙ্গে রক্তে কোলেস্টেরল বাড়িয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়।

মাফিন-ডোনাট

মাফিন বা ডোনাটও কিন্তু প্রাতঃরাশে রাখবেন না। এমনকী কোনও রকম পেস্ট্রিও রাখবেন না। কারণ এর মধ্যে যেমন চিনি থাকে তেমনই থাকে স্যাচুরেটেড ফ্যাট। ফলে প্রচুর পরিমাণে খেলে শরীরে একাধিক সমস্যা দেখা যায়। এছাড়াও চিনি বেশি খেলে শরীরে প্রদাহ জনিত সমস্যা দেখা দেয়। তাই ব্রেকফাস্ট থেকে স্যান্ডউইচ, পেস্ট্রি, বেকড খাবার এই সব একেবারেই বাদ রাখুন। এতে শরীরে অন্য কোনও সমস্যাও আসবে না আর বাড়বে না প্রদাহ জনিত অস্বস্তি।

কাঁচা শাকসবজি

দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় সালাদ থাকা ভালো, তবে সকালের নাশতায় এটি না রাখাই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কাঁচা শাকসবজিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকায় হজমে সমস্যা হতে পারে। সকালে কাঁচা শাকসবজি খেলে গ্যাসে পেট ফুলে থাকে। সেই সঙ্গে পেটে ব্যথা পর্যন্তও হতে পারে।

সাইট্রাস ফল

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ সাইট্রাস ফল যেমন- টমেটো, কমলা এগুলো ত্বকের জন্য ভালো এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। কিন্তু এ ধরনের ফল পেটে অ্যাসিডের উৎপাদন বাড়ায়। সকালে এ ধরনের ফল খেলে পেট জ্বালা এবং গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে। সবথেকে ভাল সকালের নাশতা হল রুটি-সবজি, ডিম কিংবা দই-ওটস। সূত্র : ঢাকাটাইমস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here